জাবালিয়া শরণার্থী শিবির থেকে দুইদিনে শতাধিক মৃতদেহ উদ্ধার

জাবালিয়া শরণার্থী শিবির থেকে দুইদিনে শতাধিক মৃতদেহ উদ্ধার

বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে গাজায় যুদ্ধবিরতির জোর দাবি জানানো হলেও তাতে সারা নেই ইসরাইলের। গত আট মাস ধরে গাজায় বেসামরিকদের ওপর নৃশংস হামলা চালিয়ে যাচ্ছে ইসরাইলি সামরিক বাহিনী। তাদের হামলায় দিগবিদিগ শূন্য হয়ে পড়েছে সাধারণ ফিলিস্তিনিরা। পৃথিবীর আলো বাতাসে বেঁচে থাকতে শরণার্থী হয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন তারা। তবে পালিয়েও ইসরাইলি হামলা থেকে নিস্তার পাচ্ছেন না সেখানের শিশু এবং নারীরা।

সম্প্রতি দক্ষিণাঞ্চলের শহর রাফার জাবালিয়া শরণার্থী শিবিরে ইসরাইলি হামলা শেষে গত দুইদিনে অন্তত ১২০ ফিলিস্তিনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। কামাল আদওয়ান হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তুর্কি বার্তা সংস্থা আনাদোলুকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। তারা বলেছে, ইসরাইলি বোমা হামলায় গুড়িয়ে যাওয়া স্থাপনার নিচে থেকে এসব মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। গত শুক্রবার টানা ২০দিন জাবালিয়ায় হামলা চালানোর পর সেখানে অভিযান শেষের ঘোষণা দিয়েছে ইসরাইলি সামরিক বাহিনী। এরপর থেকেই সেখানে উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

অন্যদিকে সোমবার গাজার নুসেইরাত এবং বুরিজ শরণার্থী শিবিরে বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরাইল। এতে শিশু ও নারী সহ মোট ১০ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন।

এরমধ্যে নুসেইরাতে ৪ এবং বুরিজ শরণার্থী শিবিরে নিহত হয়েছেন ৬ জন। গত আট মাসে নিহতের সংখ্যা ৩৬ হাজার ৪৯৩ জনে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া আহত হয়েছেন ৮০ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি।