কানাডার পার্লামেন্টে নিজার স্মরণে নীরবতা, ভারতের কন্স্যুলেটের পাল্টা কর্মসূচি

কানাডার পার্লামেন্টে নিজার স্মরণে নীরবতা, ভারতের কন্স্যুলেটের পাল্টা কর্মসূচি

খালিস্তানপন্থি আন্দোলনকারী হরদিপ সিং নিজারকে হত্যাকে কেন্দ্র করে আবার দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। নিজার স্মরণে কানাডার পার্লামেন্ট নীরবতা পালন করেছে। এর প্রতিবাদে পরিষ্কার বার্তা দিয়েছে কানাডার ভ্যানকোভারে ইন্ডিয়ান কন্স্যুলার জেনারেল। তারা ১৯৮৫ সালে এয়ার ইন্ডিয়া কানিক্ষ ফ্লাইটে বোমা হামলায় ৩২৯ জনকে হত্যা করায় তাদের প্রতি স্মরণ অনুষ্ঠান আয়োজনের ঘোষণা দিয়েছে। বিমানে ওই হামলার জন্য খালিস্তানপন্থিদের দায়ী করা হয়। ইন্ডিয়ান কন্স্যুলেট জেনারেল ক্ষুদ্র বার্তার সাইট এক্সে দেয়া পোস্টে লিখেছেন, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সম্মুখ সারিতে ভারতের অবস্থান। বৈশ্বিক এই হুমকিকে মোকাবিলা করার জন্য সব দেশের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করে যাবে ভারত। এয়ার ইন্ডিয়া ফ্লাইট ১৮২ (কানিক্ষ)-তে কাপুরুষোচিত এই বোমা হামলার ৩৯তম বার্ষিকী এ বছর ২৩শে জুন। ওই হামলায় নিরীহ ৩২৯ জন মানুষ নিহত হন। তার মধ্যে ৮৬ টি শিশু।

বেসামরিক বিমান চলাচলের ইতিহাসে এটা সন্ত্রাস বিষয়ক সবচেয়ে ভয়াবহ হামলাগুলোর অন্যতম। এ খবর দিয়েছে অনলাইন এনডিটিভি।

উল্লেখ্য, হরদিপ সিং নিজারকে হত্যায় ভারত ও কানাডার মধ্যে চরম উত্তেজনা দেখা দেয়। এমনকি দুই দেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক পর্যন্ত স্থগিত হয়ে যায়। একে অন্য দেশের কূটনীতিককে বহিষ্কার করে। কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো দাবি করেন, নিজার হত্যায় সরাসরি ভারতীয় কূটনীতিক ও সরকার জড়িত। এ বিষয়ে তাদের হাতে তথ্যপ্রমাণ আছে। কিন্তু ভারত সরাসরি তা প্রত্যাখ্যান করে। আবার দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক কিছুটা শিথিল হয়। এরই মধ্যে নিউ ইয়র্কে আরেক খালিস্তানপন্থি নেতা গুরুপাতওয়ান্ত সিং পান্নুনকে হত্যা পরিকল্পনায় ভারতের জড়িত থাকার অভিযোগ সামনে আনে যুক্তরাষ্ট্র। বিষয়টি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা এবং ভারতের মধ্যে বাক্য বিনিময় হচ্ছেই। এরই মধ্যে কানাডার পার্লামেন্ট হরদিপ সিং নিজারকে স্মরণ করায় সেই উত্তেজনা আবার বৃদ্ধি পাচ্ছে। ভারতের অভিযোগ, কানাডা সন্ত্রাসকে প্রশ্রয় দিচ্ছে।

কানাডার পার্লামেন্টে নিজার স্মরণে নীরবতা পালনের পর এক্সে ইন্ডিয়ান কন্স্যুলেট জেনারেল আরও লিখেছে, স্ট্যানলি পার্কের সেপারলি প্লেগ্রাউন্ড এলাকায় এয়ার ইন্ডিয়া মেমোরিয়াল স্মরণ অনুষ্ঠান হবে আগামী ২৩শে জুন স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টা ৩০ মিনিটে। ভ্যানকোভারে অবস্থানরত ভারতীয় প্রবাসীদেরকে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সংহতি প্রকাশের এই অনুষ্ঠানে যোগ দিতে উৎসাহিত করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, ১৯৮৫ সালে এয়ার ইন্ডিয়ার ফ্লাইট মন্ট্রিল থেকে লন্ডনের উদ্দেশে যাত্রা করেছিল। তা মাটি থেকে ৩১ হাজার ফুট ওপরে বোমা ব্যবহার করে উড়িয়ে দেয়া হয়। এর জন্য ভারত দায়ী করে কানাডায় অবস্থানরত শিখ নেতাদের। তাদের দাবি, শিখ নেতাদের পরিকল্পনায় ওই বোমা হামলা চালানো হয়েছিল। ওই হামলায় ২৬৮ জন কানাডার নাগরিক, ২৭ জন বৃটিশ, ২৪ জন ভারতীয় সহ কমপক্ষে ৩২৯ জন নিহত হন।
এদিকে গত বছর বৃটিশ কলাম্বিয়ার সারে এলাকায় একটি গুরুদ্বারের বাইরে পার্কিং এলাকায় খুব কাছ থেকে গুলি করে হত্যা করা হয় হরদিপ সিং নিজারকে। হত্যা মিশনে অংশ নেয় দু’জন। তারা একটি মোটরসাইকেলে করে ওই এলাকায় অবস্থান নিয়েছিল। এই হত্যাকাণ্ড তদন্ত করছে রয়েল কানাডিয়ান মাউন্টেড পুলিশ। এ ঘটনায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে ভারতীয় চার নাগরিককে।

ওদিকে কানাডার পার্লামেন্টের হাউস অব কমন্সে নীরবতা পালন করছেন পার্লামেন্ট সদস্যরা- এমন একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে ভারতের বার্তা সংস্থা আইএএনএস। তাতে দেখা যায় স্পিকার গ্রেগ ফারগাস স্মরণ অনুষ্ঠানের শুরুতে বলছেন, হাউসের সব দলের প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনা করে আমি অনুধাবন করতে পেরেছি যে, এক বছর আগে বৃটিশ কলাম্বিয়ায় হরদিপ সিং নিজারকে হত্যা করা হয়েছে এবং তাকে স্মরণ করতে সব পক্ষ নীরবতা পালনে রাজি হয়েছে। এর কয়েকদিন আগে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ইতালিতে অনুষ্ঠিত জি-৭ শীর্ষ সম্মেলনে সাক্ষাৎ করেছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর সঙ্গে। ট্রুডো বলেছেন, ভারতের সঙ্গে বড় কিছু ইস্যু আছে । ভারতে নতুন সরকারের সঙ্গে তা নিয়ে যুক্ত হওয়ার জন্য একটি সুযোগ এসেছে বলে তিনি মনে করেন।

অন্যদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জাস্টিন ট্রুডোর সঙ্গে করমর্দনের একটি ছবি পোস্ট করেছেন মোদি। তাতে এক লাইনের একটি ক্যাপশন লিখেছেন। তাতে বলা হয়েছে- জি-৭ শীর্ষ সম্মেলনে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর সঙ্গে সাক্ষাৎ।

হরদিপ সিং নিজারকে হত্যার পর দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্কে চরম উত্তেজনার পর এটাই এই দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীদের প্রথম সাক্ষাৎ।