বাংলাদেশকে ডব্লিউএইচওর ৮ নির্দেশনা

বাংলাদেশকে ডব্লিউএইচওর ৮ নির্দেশনা

করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশের জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) ‘রেসপন্স’ নির্দেশনা দিয়েছে। এতে বাংলাদেশের জন্য আটটি করণীয় নির্দেশ করেছে সংস্থাটি। বাংলাদেশবিষয়ক ৬ নম্বর সিচুয়েশন রিপোর্ট গত ৭ এপ্রিল প্রকাশ করেছে।

এর সংক্ষিপ্ত কোড হলো ‘রেসপন্স’। আর : রেডি হিউম্যান রিসোর্সেস (মানবসম্পদ প্রস্তুতকরণ), ই : এক্সপান্ড ল্যাবরেটরি টেস্টিং (ল্যাব পরীক্ষার সম্প্রসারণ), এস : সাসটেইন রোবাস্ট সার্ভিলেন্স (টেকসই পর্যবেক্ষণ নিশ্চিত করা), পি : প্রায়োরেটাইজ কেস ম্যানেজমেন্ট (রোগী ব্যবস্থাপনায় অগ্রাধিকার), ও : অরগানাইজ হেল্থ ফ্যাসিলিটিজ (স্বাস্থ্য সুবিধাদি সংগঠিত করা), এন : নেটওয়ার্ক অ্যান্ড কো-অর্ডিনেট, এস : সিকিউর ফান্ডিং অ্যান্ড সাপ্লাইজ (অর্থায়ন ও সরবরাহ নিশ্চিত করা) এবং ই : এনসিওর ইনফেকশন কন্ট্রোল (সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ নিশ্চিত করা)।

ডব্লিউএইচওর ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২০ সালের ৬ এপ্রিল ইনস্টিটিউট অব এপিডেমোলজি অ্যান্ড ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড রিসার্চের (আইইডিসিআর) ঘোষণা অনুযায়ী, বাংলাদেশে কেস ফার্টিলিটি (আক্রান্তের তুলনায় মৃত্যুহার) হলো ৯ দশমিক ৭৬ ভাগ। গত ৬ এপ্রিলের মধ্যে ৩ হাজার ৬১০টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ঢাকার বাইরে করা হয়েছে শতকরা ১১ ভাগ। গত ৭ এপ্রিল সারাদেশ থেকে ৫৫০টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকার বাইরে শতকরা ২৩ ভাগ। রিপোর্টে আরও বলা হয়, চৌদ্দটি ল্যাবে বর্তমানে টেস্ট চলছে।

এমজে/