কৃষক সাইদুল হত্যা মামলায় ১০ জনের যাবজ্জীবন

কৃষক সাইদুল হত্যা মামলায় ১০ জনের যাবজ্জীবন

জয়পুরহাটের কালাইয়ে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে কৃষক সাইদুল হত্যা মামলায় বাবা-ছেলেসহ ১০ জনের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরও দুই বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৮ মে) দুপুরে অতিরিক্ত দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক নুরুল ইসলাম এ রায় দেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জয়পুরহাট আদালতের সরকারি এপিপি আবু নাছিম মো. শামীমুল ইমাম শামীম। দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- কালাই উপজেলার আওড়া কালিমোহর গ্রামের মৃত তফিজ উদ্দিনের ছেলে জয়নাল মণ্ডল, মোজাম্মেল হক ও মোফাজ্জল হোসেন, মোফাজ্জলের ছেলে মোস্তফা ও মোসফর আলী, মোজাম্মেলের ছেলে মাহফুজার ও মাসুদ, বাদশার ছেলে মামুনুর রশীদ, মৃত লসির উদ্দীনের ছেলে সামসুদ্দিন ও আলমগীরের ছেলে বেলাল।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ৫ জুলাই বিকেলে কালাই উপজেলার আওড়া গ্রামের আব্দুস সামাদের পৈত্রিক সম্পত্তিতে আসামিরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে মাটি কেটে তাদের অন্য জমি ভরাট করছিল। তখন সামাদের দুই ছেলে সাইদুল ইসলাম ও শরীফুল ইসলাম তাদের বাঁধা দিলে আসামিরা সাইদুল ও শরীফুলকে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মারধর করে রক্তাক্ত জখম করে। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে কালাই হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে অবস্থার অবনতি হওয়ায় বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পরে ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৪ জুলাই সাইদুল ইসলামের মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় নিহতের বাবা আবদু সামাদ বাদী হয়ে কালাই থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে মামলার তৎকালীন তদন্তকারী কর্মকর্তা ওসি তদন্ত বিশ্বজিৎ বর্মণ ২০১৫ সালের ২৬ নভেম্বর আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। আদালত ২২ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আজ এ রায় দেন।

মামলার সরকারি পক্ষের আইনজীবী ছিলেন আবু নাছের মো. শামীমুল ইমাম শামীম। আর আসামি পক্ষের আইনজীবী ছিলেন কাজী রাব্বিউল হাসান মোনেম।