বাংলা ব্লকেড

শাহবাগ-সায়েন্সল্যাব-আগারগাঁও মোড় অবরোধ, যান চলাচল বন্ধ

শাহবাগ-সায়েন্সল্যাব-আগারগাঁও মোড় অবরোধ, যান চলাচল বন্ধ

সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলের দাবিতে রাজধানীর শাহবাগ মোড় অবরোধ করেছেন আন্দোলনকারীরা। বুধবার সকাল ১১ টার দিকে পূর্বঘোষিত ‘বাংলা ব্লকেডের’ কর্মসূচির অংশ হিসেবে এ মোড় অবরোধ করেন তারা। এতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। দুর্ভোগে পড়েন যাত্রীরা। এ সময় শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন ধরনের স্লোগান দিতে থাকেন।

এর আগে ছোট ছোট মিছিল নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে জড়ো হন শিক্ষার্থীরা। সেখান থেকে মিছিল নিয়ে শাহবাগে আসেন এবং সড়ক অবরোধ করেন তারা। অবরোধ ও মিছিল ঘিরে পুলিশের সতর্ক অবস্থান দেখা গেছে।

এদিকে সকাল ১১ টার দিকে সায়েন্সল্যাবে মোড় অবরোধ করেন ৭ কলেজের শিক্ষার্থীরা। এতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। দুর্ভোগে পড়েন যাত্রীরা। এ সময় শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন ধরনের স্লোগান দিতে থাকেন।

সকাল সাড়ে দশটায় ঢাকা কলেজের সামনে থেকে দুই শতাধিক শিক্ষার্থী মিছিল নিয়ে সায়েন্সল্যাব মোড় অবরোধ করেন।

আন্দোলনকারীদের ‘দালালি না রাজপথ, রাজপথ রাজপথ’, ‘আপস না সংগ্রাম, সংগ্রাম সংগ্রাম’, ‘আমার সোনার বাংলায়, বৈষম্যের ঠাঁই নাই’ ইত্যাদি কোটা বিরোধী স্লোগান দিতে দেখা যায়।

ওদিকে কোটা সংস্কারের দাবিতে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী আগারগাঁও মোড়ে অবস্থান নিয়েছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। তারা শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে আগারগাঁও মোড়ে আসেন। বুধবার সকাল ১১টার দিকে এই কর্মসূচি শুরু হয়।

আগারগাঁও মোড় ঘুরে দেখা যায়, আন্দোলনকারীরা সবগুলো সড়ক বন্ধ করে দিয়েছে। সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। তবে অ্যাম্বুলেন্সসহ জরুরি পরিবহনগুলো ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। আর মেট্রোরেল চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। এদিকে নিরাপত্তার জন্য পুলিশের কিছুসংখ্যক সদস্য আগারগাঁও মোড়ে অবস্থান করছেন।

গতকাল মঙ্গলবার বিকালে ঢাবির কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে কোটা আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক নাহিদুল ইসলাম ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচির ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, ‘বুধবার সকাল-সন্ধ্যা সারাদেশে এই কর্মসূচি পালিত হবে।’

উল্লেখ্য, গত শনিবার রাজধানীর শাহবাগে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। সে অনুযায়ী গত রোববার ও সোমবার রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ বেশ কয়েকটি পয়েন্টে অবস্থান ও অবরোধ কর্মসূচি পালন করেন তারা। এর একদিন পর আজ বুধবার আবারও সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত দেশের সব গুরুত্বপূর্ণ স্থানে সর্বাত্মক ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি ঘোষণা করে আন্দোলনকারীরা।