রোহিঙ্গাদের পুর্নবাসনে সব দেশের একাত্মতার আহবান জাতিসংঘের

রোহিঙ্গাদের পুর্নবাসনে সব দেশের একাত্মতার আহবান জাতিসংঘের

জাতিসংঘ সংবাদদাতা

গণহত্যা আর সহিংসতার মুখে দেশ থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের শরণার্থী ঘোষণা করা এবং তাদের পুর্নবাসন নিশ্চিত করা প্রয়োজন বলে মনে করে জাতিসংঘ।

জাতিসংঘরে নিয়মিত ব্রিফ্রিংয়ে সোমবার রোহিঙ্গা ইস্যুতে মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন ডোজারিককে করা এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, যেসকল রোহিঙ্গা অন্য দেশে অভিবাসী হতে চায় তাদেরকে সহায়তায় বিশ্বের সব দেশের একাত্ম হওয়া দরকার।

ব্রিফ্রিংয়ে জাতিসংঘ সংবাদদাতা মুশফিকুল ফজল আনসারী বলেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেনের বক্তব্য থেকে আমরা জানলাম যুক্তরাষ্ট্র রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে আরও একধাপ এগিয়ে এসেছে। বাংলাদেশে এখন একটা অনিশ্চিত পরিবেশ বিরাজ করছে। এপরিস্থিতিতে মহাসচিব কী উন্নত আরও দেশকে এই উদ্যেগে যুক্ত হবার আহবান জানাবেন কী না? মানবাধিকার এবং অর্থনীতি এই দুই ইস্যুতেই এখন ধুঁকছে বাংলাদেশ।

জবাবে ডোজারিক বলেন, আমরা যে আহবান জানাবো সেটা হলো-যেসকল রোহিঙ্গা অন্য দেশে অভিবাসী হতে চায় তাদেরকে সহায়তায় বিশ্বের সব দেশের একাত্ম হওয়া দরকার। তাদেরকে শরণাথী মর্যাদা এবং পুর্নবাসনে সুযোগ করে দেয়া প্রয়োজন।

উল্লেখ্য, রোহিঙ্গাদের প্রতি মিয়ানমার সরকারের হত্যাযজ্ঞ এবং নির্যাতনের ৫ম বার্ষিকীতে গত ২৫ আগস্ট যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন যুক্তরাষ্ট্রে রোহিঙ্গাদের পূনর্বাসনের ঘোষণা দেন। এসময় তিনি বলেন, “আন্তর্জাতিক সম্মিলিত মানবিক সহায়তার অত্যাবশ্যক পদক্ষেপ হিসেবে আমরা বাংলাদেশসহ ওই অঞ্চল থেকে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের পুনর্বাসন উল্লেখযোগ্যভাবে বাড়াতে কাজ করছি। যাতে তারা যুক্তরাষ্ট্রে তাদের জীবনকে নতুনভাবে গড়তে পারে।”